চাকরির ইন্টারভিউয়ের ক্ষেত্রে যে কৌশলগুলো মনে রাখা উচিত

চাকরির ইন্টারভিউয়ের ক্ষেত্রে যে কৌশলগুলো মনে রাখা উচিত-

সাধারণত ইন্টারভিউ বলতে আমরা বুঝি-সরাসরি,ফোনের মাধ্যমে অথবা ভিডিও কলের মাধ্যমে যখন কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানিতে আমরা চাকরির জন্য যোগাযোগ করে কোনো মৌখিক পরীক্ষা দিয়ে থাকি বা কথোপকথন করে থাকি।

ইন্টারভিউ দেওয়ার  সময় আমদের বেশ কিছু জিনিষ মনে রাখা দরকার।  যেগুলো আমাদের ইন্টারভিউ দিতে সাহায্য করে। তাই, কিছু সময় নিয়ে হলেও এসব বিষয় চর্চা করা উচিত।

** ইন্টারভিউ কৌশলগুলোর দক্ষতা বাড়ানো– চাকরির ইন্টারভিউ হচ্ছে আপনার জন্য একটা বড় ধরনের সুযোগ যার মাধ্যমে আপনি আপনার সেই নির্দিষ্ট চাকরিটি আপনার দক্ষতার ভিত্তিতে পেতে পারেন।  তাই, ইন্টারভিউয়ের দক্ষতাগুলো বাড়ানো উচিত।

** পারফেক্ট আউটফিট বা পোশাক– ইন্টারভিউ দেওয়ার জন্য আপনার দরকার পারফেক্ট আউটফিট। কারন, আপনি যখন কোথাও ইন্টারভিউ দিতে যাবেন তখন প্রথমই আপনার যেটি খেয়াল করা হবে সেটি হলো আপনি কিভাবে বা কি পোশাকে এসেছেন সেখানে। যার ফলে, সহজেই বোঝা যায় আপনি কতটা উপযুক্ত সেই নির্দিষ্ট চাকরির জন্য।

** ইন্টারভিউ স্কিল বা দক্ষতা বাড়ানো– একটা ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় আপনার উচিত সেই পরিমাণ ইনফরমেশন বা তথ্য সম্পর্কে জানা যার মাধ্যমে আপনার দক্ষতাগুলি প্রকাশ পায়। এবং,যা তার রিজিউম বা সি.ভি তে দেওয়া আছে যে সে কোনসব বিষয়গুলিতে দক্ষ।

** ইন্টারভিউয়ের সময় স্ট্রেস বা নার্ভাসনেস আয়ত্তে রাখা– ইন্টারভিউয়ের সময়টাই হচ্ছে স্ট্রেসফুল কারন, আপনি যতই এই ব্যাপারে দক্ষ হোন না কেন একটু নার্ভাসনেস সেই সময় কাজ করেই থাকে। তাই, যতটা সম্ভব সেই সময়ে নিজেকে রিল্যাক্স বা শান্ত রাখা।

বিভিন্ন ধরনের চাকুরীর তথ্য পেতে ভিজিট করুন https://skill.jobs

** প্রথম ইম্প্রেশনে ভাল মনোভাব তৈরি করা- প্রথম ইম্প্রেশন সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ একজন ইন্টারভিউইের জন্য। তাই, সেই কোম্পানিতে প্রবেশ করা থেকে শুরু করে কাজ শেষ করা পর্যন্ত আপনাকে অবশ্যই আপনার একটি ভাল মনোভাব সেখানে বজায় রাখতে হবে।

** নিজস্ব গুনাবলির প্রকাশ– ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় নিজস্ব গুনাবলি গুলো ব্যবহার করে নিজেকে আরও ভালভাবে প্রেজেন্ট বা উপস্থাপন করা উচিত। তাহলে, যারা ইন্টারভিউ নিবে তারাও বেশ ভালভাবে বুঝতে পারবে যে আপনি সেই চাকরিটা এবং সেই পদবীটার জন্য কতোটা উপযুক্ত।

** ইন্টারভিউ শেষে ধন্যবাদ বলা– একটা ইন্টারভিউ শেষে যদি আপনি সুন্দর করে গুছিয়ে ধন্যবাদ বলেন তাহলে সেটি খুবই ভাল প্রভাব ফেলবে আপনার ইন্টারভিউয়ের রেজাল্টের উপরে। এতে করে বোঝা যাবে, আপনি কতটা ছোট-খাটো বিষয়গুলো খেয়াল রাখেন।

** নিজস্বভাবে ইন্টারভিউ এর চর্চা করা– আপনাদের সবসময়ই উচিত ইন্টারভিউয়ের আগে কিছু সেই ইন্টারভিউ সম্পর্কীয় প্রশ্ন-উত্তর চর্চা করা। হতে পারে, সেটা কোনো বন্ধু-বান্ধব বা পরিবারের কারোর সাথে ভালভাবে চর্চা করা। যার ফলে ইন্টারভিউয়ের সময় আপনার নার্ভাসনেস কাজ কম করবে।

** পরিচিতদের সাথে যোগাযোগ রাখা- আপনি যখন একটি নির্দিষ্ট কোম্পানিতে ইন্টারভিউ দিতে যাবেন তখন সেখানে যদি আপনার আগে থেকে কেউ পরিচিত থাকে তাহলে সেটি খোজ নিয়ে যাওয়াই ভালো। এতে করে আপনি তার রেফারেন্স বা তার সাথে আগে থেকে পরিচিত হওয়ার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পেতে পারেন।

** কোম্পানি সম্পর্কে ভালোভাবে জানা– ইন্টারভিউয়ের আরেকটি গুরুত্বপূর্ন দিক হচ্ছে সেই কোম্পানির সম্পর্কে সব ধরনের তথ্য ভালভাবে জেনে যাওয়া। যার ফলে, সেই সময় আপনাকে সেই কোম্পানি সম্পর্কে যেকোনো প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করলে আপনি ভালভাবে উত্তর দিতে পারেন।

** ফোনের মাধ্যমে ইন্টারভিউ- কিছু কিছু কোম্পানি আছে,  যারা ফোনের মাধ্যমেও ইন্টারভিউ  নিয়ে থাকে। তাই, যদি এমন কিছু হয়েও থাকে তার জন্য আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে রাখা ভাল।

** গ্রূপ ইন্টারভিউ– সাধারণত গ্রূপ ইন্টারভিউ একটু জটিল হয়ে থাকে। কারন, সেইখানে অনেকে মিলে আপনার ইন্টারভিউ  নিয়ে থাকবে তাই তাদের প্রশ্ন বেশি  করার সম্ভবনাটাও থেকে থাকে।তবে, নিজের মনোবল ঠিক রেখে সেই ইন্টারভিউয়ে অংশগ্রহণ করা উচিত।

** কিছু ভুল এড়িয়ে চলা– ইন্টারভিউয়ের ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট ভুল এড়িয়ে চলাই ভাল। যেমন-নিজের পরিচয় না দিয়ে কথা শুরু করা, মোবাইল ফোন সেই সময়য়ের জন্য সাইলেন্ট রাখা যাতে তখন কোনো আওয়াজ না হয়, কোনো ধরনের চা/কফি নিয়ে সেই রুমে প্রবেশ না করা, দেরি করে আসা, বেশি নার্ভাস না হওয়া, যারা ইন্টারভিউ নিবেন তাদের সাথে বিনয়ের সাথে কথা বলা, কোনো প্রশ্নের উত্তর না জানা থাকলে সেটা না বলা, ইত্যাদি।

তাই বলা যেতে পারে আমরা যদি, চাকরির ইন্টারভিউয়ের ক্ষেত্রে এই  বিশেষ কিছু  কৌশল মনে রাখতে পারি তাহলে আমরা আমাদের ইন্টারভিউ  বেশ ভাল-ভাবে দিতে পারব। যা, আমাদের যেকোনো চাকরির জন্য বিশেষ জরুরি এবং সেটি চাকরির রেজাল্টের ক্ষেত্রে ভাল প্রভাব ফেলবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.