ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির দুই শতাধিক চাকরি প্রত্যাশীদের নিয়ে আয়োজিত

হলো স্কিল জবস এর ‘ক্যারিয়ার মেনটরিং প্রোগ্রাম’

 

পড়াশোনা শেষ করার পর অধিকাংশ গ্রাজুয়েট দেরকেই লড়াই করতে হয় চাকরি খোঁজার চিরাচরিত যুদ্ধে। শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং কর্মদক্ষতা এ দুইয়ের মধ্যে সমন্বয় না থাকলে এ যুদ্ধে জয়লাভ করাটা প্রায় অসাধ্য। তবে যুদ্ধের কিছু কলাকৌশল এবং নিয়মনিতি মেনে আগে থেকে প্রস্তুতি নিলে স্বপ্নের চাকরি পাওয়াটা খুবই সহজ। এমনটাই মনে করেন ক্যারিয়ার বিশেষজ্ঞরা। করোনাকালীন এই সময়ে চাকরি প্রত্যাশিরা যেন ঘরে বসেই সেই প্রস্তুতি নিতে পারেন এর জন্য স্কিল.জবস চালু করেছে অনলআইন ক্যারিয়ার মেন্টরিং প্রোগ্রাম ।

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সাথে যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত দুই দিন ব্যাপী অনলাইন ক্যারিয়ার মেন্টরিং প্রোগ্রামের প্রথম দিন সফল ভাবে সমাপ্ত হলো গত ৩ মে, ২০২১। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রেখেছেন ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সম্মানিত ভিসি প্রফেসর ড. চৌধুরী মফিজুর রহমান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই যুগে নিজেকে এমপ্লয়েবল করে গড়ে তুলতে প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশোনার পাশাপাশি প্রযুক্তিগত জ্ঞান অর্জনের কোন বিকল্প নেই। তিনি আরও উল্লেখ করেন, ‘বর্তমান সময়ে একজন গ্র্যাজুয়েটকে একটি নির্দিষ্ট সীমানা বা গণ্ডির ভেতর আবদ্ধ রাখলে চলবে না বরং দেশের সীমানা পেরিয়ে তার উচিত বিশ্ব নাগরিক হিসেবে নিজেকে কল্পনা করা।’ তিনি তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে স্কিল জবস এর সামগ্রিক কর্মকাণ্ড এবং উদ্যোগ সমূহের ভূয়সী প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানটিতে বিশেষ অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন ড্যাফোডিল ফ্যামিলি ও স্কিল.জবস এর সম্মানিত সিইও মোহাম্মদ নুরুজ্জামান। তিনি তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন, ‘প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত সাব্জেক্টিভ বা ফাংশনাল স্কিলস এর পাশাপাশি এক্সট্রা কারিকুলার অ্যাক্টিভিটি এর মাধ্যমে গড়ে তোলা সফট স্কিল এবং লিডারশীপ স্কিল এর গুরুত্ব অপরিসীম। এটা ছাড়া ক্যারিয়ার এর সর্বোচ্চ শিখরে আরোহণ করা সম্ভব নয়।’ তিনি আরও উল্লেখ করেন, ‘ছাত্রছাত্রী, চাকরি প্রত্যাশীদের সফট স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য স্কিল জবস কাজ করে যাচ্ছে।

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় দুই শতাধিক ছাত্রছাত্রী এবং গ্রাজুয়েট অনুষ্ঠানটিতে অংশগ্রহণ করেন। ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন এবং ইন্টারভিউ টিপস এর উপর দুটি আলাদা গ্রুমিং সেশন অনুষ্ঠিত হয়। এই অনলাইন সেশন দুইটি পরিচালনা করেন যথাক্রমে বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট এর পরিচালক জনাব কে এম হাসান রিপন এবং জনাব স্বপন কুমার গুহ মজুমদার, গ্রুপ জি এম (এইচ আর ও এডমিন ) হামিম গ্রুপ।

জনাব কে এম হাসান রিপন তার সেশনে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই যুগে নিজেদেরকে কেন ডিজিটালি ট্রান্সফরম হতে হবে এবং কিভাবে এই ট্রান্সফরমেশন বাস্তবায়ন করতে হবে তার একটি সুন্দর দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। পাশাপাশি কিছু প্রয়োজনীয় ডিজিটাল টুলস এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেন। রেজুমে বিল্ডার এর মাধ্যমে একজন কিভাবে অল্প সময়ে ও সহজেই তার নিজের রেজুমে তৈরি ও ডাউনলোড করতে পারে এবং অনলাইন পোর্টফোলিও জেনারেট করে কিভাবে সেটা সামাজিক মাধমে উপডেটেড করা যায় সেই বিষয়ে আলোকপাত করেন।

অন্যদিকে জনাব স্বপন কুমার গুহ মজুমদার তার চাকরি জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে চাকরি প্রত্যাশীদের জন্য সাতটি মূল্যবান দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। তুলে ধরেন একজন ইন্টারভিউয়ার সদ্য গ্রাজুয়েটদের কাছ থেকে কোন কোন স্কিলস প্রত্যাশা করেন । শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বৈশ্বিক চাকরি বাজারের সাথে আমাদের দেশের যে বেতন ও কর্মঘন্টা বৈষম্যতার সঠিক বিশ্লেষণ উপস্থাপন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.